1 Answer

0 votes
by
রাদারফোর্ড পরমাণু মডেল,
১৯১১ খ্রিষ্টাব্দে
বিজ্ঞানী রাদারফোর্ড
সৌরমন্ডলের সাথে সাদৃশ্য
রেখে পরমাণুর গঠন সম্পর্কে
নিজস্ব মতবাদ উপস্থাপন
করেন। এ মতবাদটিকে
রাদারফোর্ডের সোলার
সিস্টেম এটম মডেল বলা হয়ে
থাকে। এ মতবাদের
উল্লেখযোগ্য প্রস্তাবগুলো
হলোঃ
১. সকল পরমাণু অতিশয় ক্ষুদ্র
গোলাকৃতি কণা। এর দুটি
অংশ রয়েছে যথা: (ক) কেন্দ্র
বা নিউক্লিয়াস এবং (খ)
কেন্দ্র বহির্ভূত অঞ্চল।
২. পরমাণুর কেন্দ্রস্থলে একটি
ধনাত্মক চার্জবিশিষ্ট
ভারী বস্তু বিদ্যমান। এই
ভারী বস্তুকে পরমাণুর
কেন্দ্র বা নিউক্লিয়াস
বলে। পরমাণুর মোট আয়তনের
তুলনায় নিউক্লিয়াসের
আয়তন অতি নগণ্য।
৩. পরমাণুর প্রায় সবটুকু ভর এর
নিউক্লিয়াসে পুঞ্জীভূত।
তাই মোটামুটিভাবে
নিউক্লিয়াসের ভরই
পারমাণবিক ভর।
৪. সৌরমন্ডলে সূর্যের
চারদিকে আবর্তনীয়
গ্রহসমুহের মত পরমাণুতে
নিউক্লিয়াসের চতুর্দিকে
কক্ষপথে কতগুলো ঋণাত্মক
কণিকা সর্বদা ঘূর্ণায়মান
থাকে। এদের ইলেকট্রন বলে।
৫. পরমাণু বিদ্যুৎ নিরপেক্ষ।
তাই পরমাণুতে ধনাত্মক
চার্জের সংখ্যা এবং
পরিক্রমণশীল ঋণাত্মক
চার্জযুক্ত ইলেকট্রনের
সমান।
৬. নিউক্লিয়াস ও
ইলেকট্রনের মধ্যে
বিরাজিত কেন্দ্রমুখী স্থির
বিদ্যুৎ আকর্ষণ বল ও ঘূর্ণনের
ফলে সৃষ্ট কেন্দ্রবিমুখী
বলের মান সমান ও
বিপরীতমুখী।

Related questions

মনোভাব প্রকাশনী! আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং গোষ্ঠীর অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। সকলের মনোভাব প্রকাশের মাধ্যমে আমরা আমাদের জ্ঞান সমৃদ্ধ করতে পারি।
মনোভাব প্রকাশনী কি?
মনোভাব প্রকাশনী বাংলা প্রশ্ন ও উত্তর এর ওয়েবসাইট।
আপনার মনের কৌতহল মনোভাব কে প্রকাশ করুন। প্রশ্ন করে মনোভাব প্রকাশ করুন। উত্তর দিয়া আপনার মনোভাব কে জানিয়ে দিন। সাহায্য করুন অপরের মনোভাবের জড়তাকে জাগ্রত করতে। শিখিয়ে দিন এতে আপনারই জ্ঞান বৃদ্ধিপাবে।
...